Wednesday , November 14 2018
Home / বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি / কেমন যন্ত্রণার হবে পানিতে ডুবে মৃত্যুর অনুভুতি !

কেমন যন্ত্রণার হবে পানিতে ডুবে মৃত্যুর অনুভুতি !

অনলাইন ডেস্কঃ  আমার মনে হয় লেখার শিরোনামটি একটু ভীতিপ্রদ হয়ে গিয়েছে।কারন মরে যাবার অনুভূতিটি যে খুব বেশী সুখকর হবে না সেটা আমরা সকলেই আন্দাজ করতে পারি।আর আমরা কেউই সহজে মরে যেতে চাই না।যাই হোক, আপনার যদি লেখার শিরনাম দেখে বেশী অসস্থি লাগে তাহলে এই রকম লেখা না পড়াটাই মনে হয় ভাল।আর কৌতুহুল থাকলে পড়ে যান।

মৃত্যুর ব্যাপার, তাই বেশী ভুমিকা না করে শুরু করি।যদি কোন বেক্তি পানিতে ডুবে মারা যায় তবে এই মৃত্যুটি একটু যন্ত্রণাদায়ক হবে।তবে সেই বেক্তি কত তারাতারি মারা যাবে সেটির উপর নির্ভর করে এর মাত্রা।এখন বেক্তিটি কত তারাতারি মারা যাবে সেটি নির্ভর করে সে কত তারাতারি ডুববে।আর এই ব্যাপারটি কতগুলো ফ্যাক্টর এর উপর নির্ভরশীল।তা হল সাতার জানা,পানির তাপমাত্রা ও পানির গভিরতা।পানি যদি ঠাণ্ডা ও অগভীর হয় তাহলে অধিকাংশ ডুবে যাওয়া,পানির ৩ মিটারের মধ্যেই সংগঠিত হয়ে থাকে।আসলে অধিকাংশ ডুবে যাবার ঘটনা ঘটে সাতার না জানা লোকদের মধ্যে।এবং এ পরিস্থিতিতে তারা কয়েক সেকেন্ড এর মধ্যেই মৃত্যুর জটিলতার সম্মুখীন হন।আর এই পরিস্থিতিতে তারা যখন বুঝতে পারে যে তারা বিপদে পড়ে গেছে , তারা তখন অনেক ভয় পেয়ে যায় এবং ভেষে থাকার আপ্রান চেষ্টা করে।তারা উপরিভাগ থেকে ঘন ঘন শ্বাস টানতে থাকে এবং দ্রুত উঠানামার চেস্টায় ব্যাস্ত থাকার ফলে এক সময় দম বন্ধ হয়ে আসে।আর গবেষণায় দেখা গেছে এই পর্যায়ের স্থায়িত্ব মোটামুটি ২০-৬০ সেকেন্ড।

অবশেষে যখন ঐ বাক্তি একেবারে ডুবে যায় তখন সে যতক্ষণ সম্বব শ্বাস ধরে রাখার চেষ্টা করে।সাধারনত ৩০-৯০ সেকেন্ড পর্যন্ত এটি করতে পারা যায়।এসময়টা আসলে অনেক যন্ত্রণাদায়ক।অবশেষে সে শ্বাসের সাথে পানি,কফ ও বিভিন্ন ময়লা টেনে ফুসফুসে নিয়ে যায়।  ফুসফুসে টেনে নেওয়া পানি তখন সূক্ষ্ম কলায়(টিস্যু) গিয়ে গ্যাস প্রবাহে বাধা সৃষ্টি করে।পানি টেনে নেবার ফলে বাতাস চলাচলের রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়।যার কারনে স্নায়ুর উপর প্রচুর চাপ পড়ে ও অনিচ্ছাকৃত হাচি,কাপুনির সৃষ্টি হয়।বায়ু চলাচলের পথে পানি প্রবেশ করার ফলে বুক ছিন্ন করা ও প্রচুর জ্বালাকর অনুভূতির সৃষ্টি হয়।আর এই  জ্বালাকর অনুভূতির পড়ে এক শান্ত ও নিরব অনুভূতির সৃষ্টি হয়।এই অনুভূতিই হল অক্সিজেন এর অভাবে অবচতনে চলে যাবার শুরু।এবং এর পরে হৃদস্পন্দন থেমে যায় ও মানুষ মারা যায়।তাহলে বুঝতেই পারছেন এভাবে মারা যাওয়াটা কতটা কষ্টকর!

টপারবিডি/বাংলা ৭৭ম

আরও পড়ুন

চালু হচ্ছে মোবাইল অ্যাপে গাড়ি মেরামতের সেবা ‘ভ্রুম’

অনলাইন ডেস্কঃ ব্যক্তিগত ব্যবহারের গাড়ি নষ্ট হয়ে গেলে তা ঠিক করানো নিয়ে অনেকেই দুশ্চিন্তায় থাকেন। …