Tuesday , October 26 2021
Home / খেলাধুলা / ফুটবল ভালোবাসলে, মেসিকে ভালোবাসতেই হবে!

ফুটবল ভালোবাসলে, মেসিকে ভালোবাসতেই হবে!

অনলাইন ডেস্কঃ গত সপ্তাহে পঞ্চমবার ফিফার বর্ষসেরা ফুটবলারের সম্মানে ভূষিত হয়েছেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। কিন্তু এবার স্প্যানিশ লা’লিগায় তার গোলের খরা অব্যাহত। এখন পর্যন্ত মাত্র ১টি গোল লা’লিগায় পেয়েছেন সি আর সেভেন। রোববার রাতে লিগের মাঝারি সারির দল নবোন্নীত জিরোনার কাছে হারার পর রিয়াল মাদ্রিদ নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বার্সেলোনার তুলনায় ৮ পয়েন্টে পিছিয়ে পড়েছে। আজ অবধি কোনো দল স্প্যানিশ লা’লিগা খেতাব জেতেনি, লিগের প্রারম্ভিক পর্বে ৮ পয়েন্টে পিছিয়ে থেকে। গোদের ওপর বিষফোঁড়ার মতো ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো’র মাথায় পুনরায় ঝুলছে সাসপেনশনের খাঁড়া। কারণ জিরোনার বিরুদ্ধে ম্যাচে গোল না পেয়ে মাথা গরম করে এক অনর্থ ঘটান রোনালদো।

রিয়াল কর্নার পেয়েছিল। টনি ক্রুজের কর্নার কিক উড়ে আসার সময় বক্সে ধাক্কাধাক্কি হচ্ছিল। রোনালদো লক্ষ করে দেখেন বল শূন্যে উড়ে তার দিকেই আসছে। হেডে সেই বল মিট করার জন্য তিনি মরিয়া হয়ে জিরোনার মিডিও পেরে পন্সকে মুখে মেরে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেন। ম্যাচ কমিশনার তার রিপোর্টে এই ঘটনার উল্লেখ করেছেন।

উল্লেখ্য, স্প্যানিশ সুপার কাপে বার্সেলোনার বিরুদ্ধে জেতা ম্যাচে রিয়াল মাদ্রিদের প্রাণভোমরা রোনাল্ডো একটি পেনাল্টি না পেয়ে ধাক্কা মেরেছিলেন সেই ম্যাচের রেফারিকে। এর ফলে স্প্যানিশ লা’লিগার ডিসিপ্লিনারি কমিটি প্রথম পাঁচটি ম্যাচে সাসপেন্ড করেছিল রোনাল্ডোকে। শুরু থেকেই এর ফলে লা’লিগায় পয়েন্ট হারাতে থাকে রিয়াল। রোববার রাতের এই ঘটনা নিয়ে স্প্যানিশ সংবাদপত্রে প্রচুর সমালোচনা হয়েছে। যার ফলে নড়ে চড়ে বসেছে লা’লিগার ডিসিপ্লিনারি কমিটি। হয়তো আরো দুটি ম্যাচে রোনালদোকে সাসপেন্ড করা হতে পারে। সেক্ষেত্রে লা’লিগার পরবর্তী ম্যাচে রোনালদোকে ছাড়াই প্রথম একাদশ সাজাতে হবে কোচ জিনেদিন জিদানকে।

২০১৬ সালে জানুয়ারি মাসে জিদান রিয়াল মাদ্রিদের প্রশিক্ষণের দায়িত্ব নিয়ে অভূতপূর্ব সাফল্য পান। এই সাফল্যের ধারা গত আগস্ট পর্যন্ত অর্থাৎ টানা ২০ মাস বজায় ছিল। এই পর্বে জিদানের কোচিংয়ে রিয়াল মাদ্রিদ জিতেছে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ, স্প্যানিশ লা’লিগা খেতাব, স্প্যানিশ সুপার কাপ, উয়েফা সুপার কাপ সহ মহার্ঘ্য ট্রফি। আগামী ডিসেম্বরে ফিফা ওয়ার্ল্ড ক্লাব কাপও হয়তো জিতবে রিয়াল। সুতরাং জিদানকে এবার ট্রফিহীন থাকতে হয়তো হবে না। কিন্তু আজ অবধি কোনো দল আট পয়েন্টে পিছিয়ে পড়ে লা’লিগা খেতাব জিততে পারেনি। তবে জিদান এখনও খেতাবের আশা ছেড়ে দিতে রাজি নন। এই মুহূর্তে লা’লিগা টেবিলে তৃতীয় স্থানে নেমে এসেছে রিয়াল মাদ্রিদ। গত শনিবার বার্সেলোনা শেষ ম্যাচে জয় পেয়েছে ২-০ গোলে। তবে জিদান বলছেন, ‘আমরা এখনও লা’লিগায় ঘুরে দাঁড়াতে পারি। কারণ অন্য দলও পয়েন্ট নষ্ট করবে। তবে আমাদের এখন থেকে সব ম্যাচ জিততে হবে। এটা ছেলেদের বুঝিয়ে বলব।’

জিদানকে এখন তাকিয়ে থাকতে হবে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী বার্সেলোনা কবে পয়েন্ট হারায় সেই দিকে। কারণ রোববার জিরোনার কাছে হারার আগে পর্যন্ত রিয়াল মাদ্রিদের ঘুরে দাঁড়ানোর আশা ভালোভাবেই জিইয়ে ছিল। তবে জিদানের ওপর চাপ ক্রমশ এখন থেকে বাড়বে। তাকে ভেবে দেখতে হবে, ৪-৩-৩ ফর্মেশন থেকে তিনি সরে আসবেন কি না। গত বছর রিয়াল মাদ্রিদ ১৩টি অ্যাওয়ে ম্যাচ জিতে রেকর্ড করেছিল। কিন্তু এবার দেখা যাচ্ছে প্রতিটি বিভাগেই সমস্যা বাড়ছে। ঘরের মাঠে সান্তিয়াগো বার্নাব্যু স্টেডিয়ামে লা’লিগার শুরুতে ভ্যালেন্সিয়া এবং লেভান্তের সঙ্গে ড্র করে ৪ পয়েন্ট খুইয়েছিল রিয়াল মাদ্রিদ। তারপর রিয়াল বেটিসের কাছে হেরে যায় তারা। তখনই ৭ পয়েন্টে পিছিয়ে পড়েছিল রিয়াল মাদ্রিদ। এবার দেখা যাচ্ছে ক্যাটালুনিয়ায় অ্যাওয়ে ম্যাচ খেলতে গিয়েও নবোন্নীত জিরোনার কাছে ২ পয়েন্ট হারাল তারা। রবিবারের ম্যাচে রাফায়েল ভারানের চোট কিঞ্চিৎ দুর্বল করে দেয় রিয়াল ডিফেন্সকে। স্টপারে নাচো সামলাতে পারছিলেন না জিরোনার প্রতি আক্রমণগুলি। এরপর তাদের কফিনে শেষ পেরেকটি পুঁতে দেয় ক্রিশ্চিয়ান স্টুয়ানি ও পোর্তু।

গত মরশুমেও হামেস রডরিগেজ, আলভারো মোরাতার মতো কুশলী ফুটবলার রিয়ালের রিজার্ভ বেঞ্চে ছিল। কিন্তু এই মরশুমে দু’জনকেই জিদান মোটা অর্থ বিক্রি করে দিয়েছেন। ম্যাচের শেষে জিনেদিন জিদান বলেন, ‘গত সপ্তাহে বর্ষসেরা কোচের সম্মান আমাকে দিয়েছে ফিফা। কিন্তু আমি নিজেকে বিশ্বসেরা কোচ হিসাবে মনে করি না। ১৮ মাস হয়ে গেল আমি রিয়াল মাদ্রিদে কোচিং করাচ্ছি। আমি ভাগ্যবান, বিশ্বের সেরা ক্লাবে কোচিং করানোর সুযোগ পেয়ে। তবে জানি না আর কতদিন এইভাবে ব্যর্থতা চলতে থাকলে ক্লাব ম্যানেজমেন্ট আমাকে কোচের পদে বহাল রাখবে। আমি বিশ্বাস করি, মরশুমের দ্বিতীয়ার্ধে ছবিটা বদলাবে।’

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের গ্রুপ পর্বে আগের ম্যাচে টটেনহ্যাম হটস্পারের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করেছিল রিয়াল মাদ্রিদ। ঘরের মাঠ সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে তারা হারাতে পারেনি টটেনহ্যামকে। আগামী বুধবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফিরতি পর্বের ম্যাচে ওয়েমব্লি স্টেডিয়ামে আবার টটেনহ্যামের মুখোমুখি হবে রিয়াল মাদ্রিদ। অন্তত চ্যাম্পিয়ন্স লিগে বারো বারের ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নরা লক্ষ্য স্থির রেখে খেতাব জয়ের লক্ষে ঝাঁপাতে বদ্ধ পরিকর। কিন্তু তার আগে আপফ্রন্টে গোলের খরা কাটিয়ে উঠতে হবে রিয়াল মাদ্রিদকে। করিম বেনজেমা পুরোপুরি গোলকানা হয়ে গিয়েছেন। আর সিআর সেভেনও লা’লিগায় গোল পাচ্ছেন না। তাতেই জিদানের দলের জয়ের খরা আর কাটছে না।

সুয়ারেজের মতো স্ট্রাইকার বেশি দিন ছন্দহীন থাকে না, মন্তব্য ভালভার্দের
মঙ্গলবার উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের গ্রুপ-ডি’র ম্যাচে ওলিম্পিয়াকোসের বিরুদ্ধে খেলতে নামবে বার্সেলোনা। প্রথম তিনটি ম্যাচে যথাক্রমে জুভেন্তাস, স্পোর্টিং সিপি এবং ওলিম্পিয়াকোসকে হারিয়ে নক-আউট পর্বে পৌঁছানো কার্যত নিশ্চিত কাতালন ক্লাবটির। তবে বার্সেলোনার কোচ আর্নেস্তো ভালভার্দের দুশ্চিন্তা বাড়িয়েছে কার্ড ও চোট সমস্যা। সাসপেনশনের জন্য এই ম্যাচে খেলতে পারবেন না জেরার্ড পিকে। চোট রয়েছে অভিজ্ঞ মিডফিল্ডার আন্দ্রে ইনিয়েস্তা, ওসুমানে ডেম্বেলে এবং আর্দা তুরানেরও। এছাড়া উরুগুয়ান তারকা লুই সুয়ারেজের অফ ফর্মও বার্সেলোনার অন্যতম সমস্যা। তবে এই প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে ভালভার্দে বলেছেন, ‘ওর মতো স্ট্রাইকার খুব বেশিদিন ছন্দহীন থাকে না। মনে রাখতে হবে, আতলেতিকো মাদ্রিদের বিরুদ্ধে সুয়ারেজের গোলই আমাদের মূল্যবান এক পয়েন্ট এনে দিয়েছিল।’

মঙ্গলবার আন্দ্রে ইনিয়েস্তার পরিবর্তে পাওলিনহোর খেলার সম্ভাবনাই বেশি। রিজার্ভ বেঞ্চে থাকতে পারেন ডেনিস সুয়ারেজ। ডিপ ডিফেন্সে স্যামুয়েল উমতিতির পাশে জেভিয়ার মাসচেরানোকে খেলানোর পরিকল্পনা রয়েছে কোচের। আপফ্রন্টে মেসি ও সুয়ারেজের সঙ্গে ডিওলোফেউ খেলবেন।

শনিবার লা লিগার গত ম্যাচে অ্যাথলেতিক বিলবাওকে ২-০ গোলে হারিয়েছে বার্সেলোনা। রবিবারই গ্রিসে পৌঁছে গিয়েছেন মেসিরা। এদিন সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে পাওলিনহো বলেছেন, ‘মেসির পাশে খেলতে পারা অত্যন্ত সৌভাগ্যের। এত ক্ষুরধার ফুটবল মস্তিষ্ক অন্য কারও নেই। লা লিগায় নিয়মিত গোলের মধ্যে রয়েছে মেসি। মাঠে ওকে যত দেখছি ততই বাড়ছে মুগ্ধতা।’ গ্রিসের দল ওলিম্পিয়াকোস সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে বার্সেলোনার কোচ ভালভার্দের বিশ্লেষণ, ‘এখনও পর্যন্ত পয়েন্টের খাতা খুলতে না পারলেও ঘরের মাঠে স্পোর্টিং সিপি’র বিরুদ্ধে তুল্যমূল্য প্রতিদ্বন্দ্বিতা মেলে ধরেছিল ওলিম্পিয়াকোস। এমনকী, ন্যু ক্যাম্পে প্রথম পর্বের ম্যাচে ১-৩ গোলে আমাদের কাছে হারলেও গ্রিক ক্লাবটি লড়াই করেছে। ঘরের মাঠে অন্তত এক পয়েন্ট পাওয়ার জন্য ওলিম্পিয়াকোস অবশ্যই মরিয়া চেষ্টা করবে। তাই এই ম্যাচ হালকাভাবে নিচ্ছি না।’

চোটের জন্য ওলিম্পিয়াকোস এই ম্যাচে পাচ্ছে না সেবা এবং এল ফার্দৌকে। কোচ লেমোনিস বলেছেন, ‘প্রথম তিনটি ম্যাচে হারলেও আমরা ঘুরে দাঁড়াতে প্রস্তুত। বার্সেলোনার মতো প্রবল শক্তিশালী দলের বিরুদ্ধে পরিকল্পিত পথে লড়াই করব। তবে এই ম্যাচে ওরাই ফেবারিট। লিও মেসি, লুই সুয়ারেজ, ইভান র‌্যাকিটিচদের মতো ম্যাচ উইনার রয়েছে কাতালন ক্লাবটিতে। তবে ঘরের মাঠে সমর্থকদের সামনে আক্রমণাত্মক ফুটবলই উপহার দিতে চায় ওলিম্পিয়াকোস।’

টপারবিডি বাংলা-৭৭ম

আমাদের পেজে আরও পড়ুন ⇒  প্রায় দেড় লাখ ভারতীয় মঙ্গলে চলে যাচ্ছেন!

⇒ ফর্সা তো দূরের কথা, ফেয়ারনেস ক্রিম থেকে হতে পারে ক্যানসারও! জানুন বিস্তারিত

⇒ সোশ্যাল মিডিয়ার ব্যবহারে বাড়ছে মানসিক চাপ,কিন্তু কেন?

Check Also

ক্যান্সারের ঝুঁকি কমিয়ে দেবে কিসমিস!

কিসমিসে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম, যা হাড় মজবুত করতে বেশ ভূমিকা পালন করে। কিসমিসে আরো …