Monday , October 18 2021
Home / আজকের খবর / বিশ্বের সবচেয়ে বিলাসবহুল বাড়ীর মালিক সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ!!

বিশ্বের সবচেয়ে বিলাসবহুল বাড়ীর মালিক সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ!!

দুই বছর আগে বিক্রি হয়েছিল ফ্রান্সের শ্যাঁতু লুই ফোরটিন নামের একটি বিলাসবহুল প্রাসাদসম বাড়ি। ফরচুন ম্যাগাজিন তখন সেটিকে বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল বাড়ি বলে অভিহিত করেছিল। মোট ৫৭ একর জায়গার ওপর তৈরি এই বাড়ির বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হলেও ২০১৫ সালে জানা যায়নি বাড়ির ক্রেতার নাম। তবে এখন জানা গেছে, ওই বাড়ি কিনেছিলেন সৌদি আরবের যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান!

সংবাদমাধ্যম দ্য নিউইয়র্ক টাইমসের সাম্প্রতিক এক অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে প্রকাশিত হয়েছে এ তথ্য। শ্যাঁতু লুই ফোরটিন নামের বাড়িটি ফ্রান্সের ভার্সাইয়ের কাছে অবস্থিত। এর বাজারমূল্য প্রায় ৩০ কোটি ডলার। ঊনবিংশ শতাব্দীর একটি দুর্গকে ২০০৯ সালে পুনর্নির্মাণ করা হয়। বাড়িতে আছে সোনার তৈরি ঝরনা ও মার্বেলের মূর্তি। আরও আছে গোলকধাঁধা ও পার্ক।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, সৌদি যুবরাজের কাছে বিক্রি হওয়ার পর থেকেই শ্যাঁতু লুই ফোরটিন নামের বাড়িটিতে সর্বসাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ রয়েছে। ২০১৫ সালের পর মালিকপক্ষ একবারের জন্যও বাড়িতে আসেননি।

নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়, সৌদি যুবরাজ খুব সতর্কতার সঙ্গে কিছু শেল কোম্পানির মাধ্যমে এই বিলাসবহুল বাড়িটি কিনেছিলেন। এখন এই বাড়ির মালিকানাও আছে এসব কোম্পানির হাতে। শেল কোম্পানি হলো একধরনের নিষ্ক্রিয় আর্থিক প্রতিষ্ঠান। এগুলো মূলত ভবিষ্যতে ব্যতিক্রমী কোনো আর্থিক কর্মকাণ্ড পরিচালনার জন্য ব্যবহার করা হয়। এসব শেল কোম্পানির মালিকানায় আছে এইট ইনভেস্টমেন্ট কোম্পানি নামের একটি প্রতিষ্ঠান। এটি একটি সৌদি প্রতিষ্ঠান, যার ব্যবস্থাপনায় আছেন সৌদি প্রিন্স সালমানের ব্যক্তিগত ফাউন্ডেশনের প্রধান কর্মকর্তা! এভাবেই বিলাসবহুল বাড়িটি নিজের কবজায় রেখেছেন সৌদি যুবরাজ। এরই মধ্যে সৌদি রাজপরিবারের সদস্যদের উপদেষ্টারা এ তথ্য স্বীকার করে নিয়েছেন। তাঁরা বলেছেন, শ্যাঁতু লুই ফোরটিন সৌদি যুবরাজের সম্পত্তি।

কেমন সেই বাড়ি?

শ্যাঁতু লুই ফোরটিন নামের বাড়িটি ১৭ শতকে ফ্রান্সের ভার্সাই প্রাসাদের আদলে তৈরি করা হয়েছে। প্রাসাদটির কাছেই বাড়িটি অবস্থিত।

ঊনবিংশ শতাব্দীতে দুর্গ হিসেবে নির্মিত বাড়িটিকে ২০০৯ সালে পুনর্নির্মাণ করা হয়।

বাড়িটিতে একটি ওয়াইন সেলার এবং একটি সিনেমা হল রয়েছে।

বাড়িটি ঘিরে চারদিক থেকে পরিখা খনন করা রয়েছে। আর পানির নিচে রয়েছে একটি বিশেষ চেম্বার।

২০১৫ সালে বাড়িটিকে ফরচুন ম্যাগাজিন বিশ্বের সবচাইতে দামী বাড়ি বলে আখ্যা দিয়েছে।

বাড়িটিতে থাকা ফোয়ারা এবং শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা, আলো এবং মিউজিক সিস্টেম স্মার্টফোনের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব।

২০১৫ সালে প্রিন্স মোহাম্মদ এক রুশ ব্যবসায়ীর কাছ থেকে প্রায় ৬০ কোটি ডলার খরচ করে একটি ইয়ট কিনেছিলেন।

নিউ ইয়র্ক টাইমস ওই রিপোর্টে আরো দাবী করা হয়েছে, মাত্র গত মাসে রেকর্ড দামে বিক্রি হওয়া লিওনার্দো দা ভিঞ্চির চিত্রকর্মটির মালিক ছিলেন প্রিন্স মোহাম্মদ।

”স্যালভ্যাতো মুন্ডি (বিশ্বের ত্রাণকর্তা বা সেভিয়র অফ দ্য ওয়ার্ল্ড)” নামে পরিচিত ঐ চিত্রকর্মটি সংযুক্ত আরব আমিরাতে দ্য ল্যুভর মিউজিয়ামে শোভা পেতে যাচ্ছে।

টপারবিডি বাংলা-৭৭ম ১০০৯

আপডেট পেতে ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সঙ্গেই থাকুন,ধন্যবাদ

Check Also

রাষ্ট্রপতি পদটিকে এত গুরুত্ব দেয় কেন রাজনীতি দলগুলো?

আগামী ১৮ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রপতি নির্বাচন হবে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশন। বর্তমান রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আবদুল হামিদের …