Monday , October 18 2021
Home / আজকের খবর / রংপুর সিটির ভোটগ্রহণ সম্পন্ন, চলছে গণনা

রংপুর সিটির ভোটগ্রহণ সম্পন্ন, চলছে গণনা

অনলাইন ডেস্কঃ কোনোরকম অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই উৎসবমুখর পরিবেশে শেষ হয়েছে রংপুর সিটি করপোরেশন (রসিক) নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। এখন চলছে ভোট গণনা।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে এই ভোট গ্রহণ শুরু হয়। বিরতিহীন ভোটগ্রহণ চলে বিকেল চারটা পর্যন্ত।

নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, কিছুক্ষণ বিরতি দিয়ে শুরু হয় ভোটগণনা। রাতেই জানা যাবে কে হচ্ছেন রংপুর সিটির পরবর্তী নগরপিতা।

রসিক নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা সুভাষ চন্দ্র সরকার বলেন, নগরীর ৩৩টি ওয়ার্ডের ১৯৩টি ভোট কেন্দ্রে এক হাজার ১২২টি বুথে ভোটগ্রহণ শুরু হয় সকাল ৮টা থেকে। এবারের নির্বাচনে ৬৫ থেকে ৭০ শতাংশ ভোটগ্রহণ হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সকাল সাড়ে ৯টার দিকে শিশুমঙ্গল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোট দেন সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদ।
 
ভোটদান শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এরশাদ বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আমি বলেছিলাম- জাতীয় পার্টির প্রার্থী লক্ষাধিক ভোটের ব্যবধানে জয়লাভ করবে। আমি আশা করি, রংপুরবাসী সেই আশার প্রতিফলন ঘটাবেন।

নির্বাচনে শীতের কারণে সকাল থেকে ভোটারের সংখ্যা কম থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তা বাড়তে থাকে। কেন্দ্রগুলোতে উৎসবমুখর পরিবেশে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়েছেন ভোটাররা। বুথগুলোর সামনে ছিল নারী ও পুরুষের দীর্ঘ লাইন।

সকাল ১০টা ২০ মিনিটে সালেমা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দেন আওয়ামী লীগের মেয়রপ্রার্থী সরফুদ্দীন আহমেদ ঝন্টু। এর আগে সকাল ৯টা ২০ মিনিটে আলমনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দেন জাতীয় পার্টির মেয়রপ্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা। তারও আগে সকাল ৮টা ৪৫ মিনিটে মাহীগঞ্জের দেওয়ানতুলি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নিজের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন বিএনপির মেয়রপ্রার্থী কাওছার জামান বাবলা।

এই নির্বাচনে পরীক্ষামূলকভাবে রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে নগরীর ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের শালবন এলাকায় রংপুর সরকারি বেগম রোকেয়া কলেজে কেন্দ্রে ইভিএমের মাধ্যমে ভোট নেওয়া হয়। সেখানে ইভিএমের মাধ্যমে ভোট দিয়ে সবাই উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন।

রংপুরে এবার মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৭ প্রার্থী। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের সরফুদ্দীন আহমেদ ঝন্টু (নৌকা), জাতীয় পার্টির মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা (লাঙ্গল), বিএনপির কাওসার জামান বাবলা (ধানের শীষ), বাসদের আবদুল কুদ্দুস (মই), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের এ টি এম গোলাম মোস্তফা বাবু (হাতপাখা), ন্যাশনাল পিপলস পার্টির সেলিম আখতার (আম) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী হোসেন মকবুল শাহরিয়ার আসিফ (হাতি)।

এছাড়া সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২১১ জন এবং সংরক্ষিত ১১ ওয়ার্ডে ৬৫ নারী কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

অবাধ, সুষ্ঠু এবং সবার কাছে গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের লক্ষ্যে সব ধরনের প্রস্তুতি ছিল এবারের নির্বাচনে। প্রতিটি কেন্দ্রে দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন ২৪ জন করে পুলিশ ও আনসার বাহিনীর সদস্য। এছাড়াও ৩৩ জন নির্বাহী ও ১১ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন এবং ৮ সদস্য বিশিষ্ট র‍্যাবের ৩৩টি দল নগরীর ৩৩টি ওয়ার্ডে কার্যক্রম চালান। নির্বাচনে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে ও আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ২১ প্লাটুন বিজিবি মঙ্গলবার সকাল ৬টা থেকে মাঠে রয়েছেন।

২০৩ বর্গকিলোমিটার আয়তনের রংপুর সিটিতে ভোটার ৩ লাখ ৯৩ হাজার ৯৯৪ জন। এ সিটিতে নারী ও পুরুষ ভোটার প্রায় সমান।

নির্বাচনের সার্বিক পরিস্থিতি শান্তিপূর্ণ ছিল জানিয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা সুভাষ চন্দ্র সরকার বলেন, নির্বাচন শুরুর পর কোথাও কোনো গোলযোগ ছাড়াই শেষ হয়েছে। সব কেন্দ্রগুলোতে শান্তিপূর্ণ ভোট হয়েছে। এ নিয়ে আমরা কারও কোনো অভিযোগ পাইনি।

টপারবিডি বাংলা-৭৭ম ১১০০

আপডেট পেতে ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সঙ্গেই থাকুন,ধন্যবাদ

Check Also

ফারমার্স ব্যাংক আমানত ফেরত দিতে পারছে না

অনলাইন ডেস্কঃ অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, তারল্য-সংকটের কারণে বর্তমানে ফারমার্স ব্যাংক গ্রাহকদের আমানত …